যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীদের তৈরি করো'না ভা'ইরাসের (কভিড-১৯) টিকাটির শেষ পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে। তৃতীয় তথা শেষ পর্যায়ের ট্রায়ালে আট হাজার স্বেচ্ছাসেবকের ওপর এটি প্রয়োগ করা হয়েছে। এই প’রিস্থিতিতে করো'না র বি'রুদ্ধে দীর্ঘমেয়াদী প্র’তিরো’ধ গড়তে সক্ষম তাঁদের তৈরি টিকা, এমনটাই দা’বি করলেন অক্সফোর্ডের প্রতিষেধক গবেষণার প্রধান ড. সারা গিলবার্ট।

ড. গিলবার্ট জা’নান, করো'না র বি'রুদ্ধে প্র’তিরো’ধ গড়ে তুলতে সফল হয়েছে এই টিকা। একাধিক পরীক্ষায় তার প্রমাণও মিলেছে। শুধু তাই নয়, তাঁদের তৈরি এই প্রতিষেধক করো'না র বি'রুদ্ধে বছরখানেক ধ’রে প্র’তিরো’ধ গড়তে সক্ষম বলে দা’বি গিলবার্টের।

অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীদের তৈরি করো'না টিকার সুর’ক্ষার মেয়াদ নিয়ে আগেই জা’নিয়েছিলেন ব্রিটিশ ফার্মাসিউটিক্যাল জায়ান্ট ‘অ্যাস্ট্রা জেনিকা’র কার্যনির্বাহী প্রধান পাস্কাল সরিওট। তিনি জা’নান, এই প্রতিষেধক এক বছর পর্যন্ত করো'না র থেকে সুর’ক্ষা দিতে পারবে বলেই অনুমান করা হচ্ছে।

অক্সফোর্ডের প্রতিষেধক বিশেষজ্ঞ ড. সারা গিলবার্ট অবশ্য দা’বি করেন, তাঁদের তৈরি করো'না র টিকা বেশ কয়েক বছর পর্যন্ত ভা'ইরাসের বি'রুদ্ধে প্র’তিরো’ধ গড়তে সক্ষম। শ’রীরের সাধারণ প্র’তিরো’ধ ক্ষ’মতার চেয়ে অনেকটাই শ’ক্তিশালী প্র’তিরো’ধ গড়তে পারবে অক্সফোর্ডের এই প্রতিষেধক।

ইতিমধ্যেই এই প্রতিষেধকের উৎপাদনের কাজ শুরু করে দিয়েছে ব্রিটিশ ফার্মাসিউটিক্যাল জায়ান্ট ‘অ্যাস্ট্রা জেনিকা’ এবং ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট। টিকাটি উৎপাদনের কাজ শুরু হবে ব্রাজিলেও।

মা’র্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ৩০ হাজার, ইংল্যান্ডের ১০ হাজার এবং ব্রাজিলে অ'ন্তত দুই হাজার স্বেচ্ছাসেবকের ওপর এই টিকার অন্তিম পর্বের হিউম্যান ট্রায়াল হবে। তবে সব কিছুর আগে প্রতিষেধকের সুর’ক্ষার বিষয়টিতেই জো’র দিয়েছেন অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীরা। এ ক্ষেত্রে তাড়াহুড়ো ক’রতে চাইছেন না তাঁরা। সূত্র : জি নিউজ।