নারী অফিস সহক’র্মী র স’ঙ্গে আপ’ত্তিকর ভিডিও ছ’ড়িয়ে পড়ার ঘ’টনায় জামালপুরের জে’লা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরকে ওএসডি (বিশেষ ভারপ্রাপ্ত ক’র্মকর্তা) করা হয়েছে।

তার জায়গায় নতুন ডিসি হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন মো. এনামুল হক। রবিবার (২৫ আগস্ট) এ সংক্রা’ন্ত পৃথক দুটি আদেশ জা'রি করেছে জনপ্রশা’সন মন্ত্রণালয়।

এদিকে সর্বশেষ পাওয়া সংবাদে জা’না গেছে, ওএসডি হওয়া জে’লা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরের শুদ্ধাচার সনদ কেড়ে নেয়া হবে। আপ’ত্তিকর ভিডিও প্র’কাশের ঘ’টনার পরিপ্রেক্ষিতে রবিবার (২৫ আগস্ট) তাকে ওএসডি করে জনপ্রশা’সন মন্ত্রণালয় থেকে আদেশ জা'রি করা হয়।

দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের স’ঙ্গে আলাপকালে জনপ্রশা’সন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জা’নান, আহমেদ কবীরের বি'রুদ্ধে ওঠা অ’ভিযোগ প্রমাণ হলে তার বি'রুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তির ব্যব’স্থা করা হবে। তদ’ন্ত করে সাবেক এ ডিসি ও নারী সহক’র্মী র বি'রুদ্ধে ব্যব’স্থা নেয়া হবে বলেও জা’নান তিনি।

ফরহাদ হোসেন বলেন, আহমেদ কবীরকে এর আগে শুদ্ধাচার পদক দেয়া হয়েছিল। সেটি ফিরিয়ে নেব। যাতে এ ধ’রনের কাজ ভবিষ্যতে অন্য কেউ না ক’রতে পারে। আগামীতে ডিসি নিয়োগের ক্ষেত্রে নৈতিকতা বিবেচনা করে নিয়োগ দেয়া হবে বলেও জা’নান তিনি।

তিনি জা’নান, আগামীতে জে’লা প্রশাসক নিয়োগ দেয়ার ক্ষেত্রে নৈতিকতা বিবেচনা করা হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, জামালপুরের ডিসি অনৈতিক কাজ ক’রেছেন। প্রাথমিক তদ’ন্তের ভিত্তিতে তার বি'রুদ্ধে ব্যব’স্থা নেয়া হয়েছে। অধিকতর তদ’ন্তের ভিত্তিতে পরবর্তী সময় আ’ইনানুগ ব্যব’স্থা নেয়া হবে। পাশাপাশি যে নারীর নাম এসেছে তাকেও তদ’ন্তের আওতায় আনা হবে। এ ক্ষেত্রে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে তদ’ন্ত কমিটি করে ব্যব’স্থা নেয়া হচ্ছে।

স’ম্প্রতি জামালপুরের ডিসির একটি আপ’ত্তিকর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওটিতে ডিসি আহমেদ কবীরের স’ঙ্গে তার অফিসের এক নারীক’র্মী কে অন্তরঙ্গ অব’স্থায় দেখা যায়।

বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে খন্দকার সোহেল আহমেদ নামে একটি ফেসবুক আইডি থেকে জে’লা প্রশাসকের আপ’ত্তিকর ভিডিওটি পোস্ট করা হয়। যদিও বিষয়টি অস্বী’কার করে ঘ’টনাটি ‘সাজানো’ বলে দা’বি করেন ডিসি আহমেদ কবীর। ওই ঘ’টনায় জামালপুরসহ সারা দেশের মানুষের মাঝে ক্ষোভ ছ’ড়িয়ে প’ড়ে।