নখের কোণায় প্রচ’ণ্ড ব্য’থা, একটু খে’য়াল ক’রতেই দে’খলেন যে বেকায়দা ভাবে নখ বৃ’দ্ধি পে’য়েছে আর ঢু’কে যা’চ্ছ মাংসের ভেতরে।

এমন একটা স্থানে যে কে’টে ফে’লারও কোন উপায় নেই, কেননা তাতে মাংস কা’টা পড়বে। এই সম’স্যাটিকেই বাংলায় আম’রা বলে থাকি “নখের কোণা ও’ঠা”।

জে’নে নিন ব্য’থা কমা’নো ও ই’নফেকশন প্র’তিরো’ধ করার সহজ উপায় –

– হাত বা পা উ’ষ্ণ লবণ পানিতে ভি’জিয়ে রা’খু’ন মিনিট দশেক। যতটা স’হ্য ক’রতে পারেন, ততটা গরম পানি নেবেন।

– কাজ শুরুর আগে মেনিকিউর সেট গরম পানি দিয়ে ভালো করে ধু’য়ে জী’বাণুমু’ক্ত করে নিন।

– এবার পা/হাত ভালো করে মু’ছে নিন। মুছে নেয়ার পর নখ কা’টুন। বে’ড়ে ও’ঠা বাড়তি নখ ও তার আশেপাশে যতটা স’ম্ভব কে’টে ফে’লুন।

– এবার রয়ে যাওয়া বাড়তি নখ চিমটার সাহা’য্যে সামান্য উঁ’চু করে ধ’রুন এবং আরেকটি চিমটার সাহা’য্যে সামান্য একটু তুলো নখের নিচে গুঁ’জে দিন। খুব সা’বধানে কাজটি করুন। এই কাজটি আপনার নখে ব্য’থা হতে দেবে না।

– যতদিন নখে বড় না হচ্ছে আর আপনি কে’টে য’ন্ত্রণাদায়ক বা’ড়তি কোণা বাদ দিতে না পা’রছেন, ততদিন পর্যন্ত এভাবেই তুলো দিয়ে রা’খু’ন। দিনে ২/১ বার বা জী’বাণুনাশক দিয়ে ধু’য়ে তুলো ব’দলে দে’বেন।

– যদি ইতিম’ধ্যেই ই’নফেকশন হয়ে গিয়ে থাকে, তাহলে অ’বিলম্বে ডাক্তারের কাছে যান। এই প’দ্ধতি অ’বলম্বন ক’রবেন না।

– হাত/পা সর্বদা পরি’ষ্কার রা’খু’ন এবং এমন হলে মোজা প’রিধান ক’রবেন না।