মাদারীপুরে ১৫ বছর পর এক কিশোরী পুরুষ হয়ে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে ফি’রেছেন গ্রামের বাড়ি। শি’বচর উপজে’লার নিলখী ইউনিয়নের চ’রকামা’রকান্দি গ্রামে ঘ’টে এ ঘ’টনা। চা’ঞ্চল্যকর এ ঘ’টনায় ওই পুরুষকে দে’খতে তার বাড়িতে ভীড় ক’রছেন স্থা’নীয়রা।

এলাকাবাসী ও পারিবারিক সূত্র জা’নায়, শি’বচর উপজে’লার চ’রকামা’রকান্দি গ্রামের সে’কান্দার খানের মেয়ে হেনা আক্তার ১৫ বছর আগে পরিবারের সাথে গ্রাম ছে’ড়ে ঢাকা শহরে বসবাস শু’রু করে। প্রায় ৮ বছর আগে হেনা তার নিজে'র শা’রীরিক প’রিবর্তন লক্ষ্য করে। তার মধ্যে পু’রুষালি প’রিবর্তন দেখে সে চি’কিৎসকের শ’রণাপন্ন হয়।

চিকি’ৎসক তাকে জা’নায় হ’রমোনজনিত কারণে দে’খা দি’য়েছে এ সম’স্যা। চিকিৎ’সকের প’রামর্শে ঔষধ খাওয়া শুরু ক’রলেও ধীরে ধীরে সে একজন পুরুষ মানুষে রূ’পান্তরিত হয়ে যায়। এ অ’বস্থায় প্রায় ৫ বছর আগে নিজে'র নাম প’রিবর্তন করে সেলিম রেজা রা’খে। পরবর্তীতে একটি মেয়েকে বিয়ে করেও। তার সংসারে ছোট এক পুত্র সন্তান র’য়েছে।

বর্তমানে ওই ব্য’ক্তির বয়স ৩০ বছর। এক সপ্তাহ আগে সে তার স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে গ্রামের বা’ড়িতে আ’সেন। এমন ঘ’টনায় তাকে এক ন’জর দে’খতে প্র’তিনিয়ত বিভিন্ন গ্রাম থেকে উৎ’সুক মানুষ ভীড় ক’রছেন ওই বাড়িতে।

প্র’তিবেশী আসমা বেগম বলেন, সেলিম আগে মেয়ে ছিল। নাম ছিল হেনা। আমাকে নানী বলতো। আমা’র কাছে অনেক থাকতো। ঢাকা যাওয়ার পর সেখানেই ওর শা’রীরিক প’রিবর্তন হ’য়েছে। হেনা বিয়ে করে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে কয়েকদিন হলো গ্রামে এ’সেছে।

আরেক প্র’তিবেশী আলম খান বলেন, ওরা ঢাকা থাকা অ’বস্থায় আমা’র সাথে ফোনে যোগাযোগ ক’রতো। ও মেয়ে থেকে পুরুষে রূ’পান্তর হওয়ার খবর আমাকে জা’নিয়ে ব’লেছিল চাচা আল্লাহ যেহেতু আমাকে মেয়ে থেকে পুরুষ বা’নিয়ে দি’য়েছেন তাহলে আর ঢাকা থা’কবো না। গ্রামে এসে প্র’য়োজনে দিন মজু’রী কাজ করে সং’সার চা’লাবো।

পুরুষে রূ’পান্তরিত সেলিম রেজা বলেন, আমি মেয়ে হয়েই জ’ন্মগ্রহণ ক’রেছিলাম। প্রায় ৮ বছর আগে আমা’র মধ্যে ব্যা’পক প’রিবর্তন শু’রু হলে চিকিৎ’সকের কাছে গে’লে তারা বলেন এটা হ’রমোনজনিত সম’স্যা। হ’রমোনজনিত হোক বা যে কোন রো’গের জন্য হোক সৃ’ষ্টিকর্তা আমাকে মেয়ে থেকে স’ম্পূর্ণ পুরুষে রূ’পান্তরিত করে দি’য়েছেন। আমি বিয়ে ক’রেছি। আমা’র একটি ছেলেও র’য়েছে। আমি স্বা’ভাবিকভাবে সবার সাথে একত্রে বাঁ’চতে চাই।

সূত্র: সময়নিউজ