বাতাসে ভেসে থাকা ক্ষুদ্র কণার মাধ্যমে করো'না ভা'ইরাস ছড়াতে পারে বলে স্বী’কার করেছে বিশ্ব স্বা’স্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। এ বিষয়ে নাকি প্রাথমিক প্রমাণও পেয়েছেন তারা।

বিশ্ব স্বা’স্থ্য সংস্থার এক ক’র্মকর্তা বলছেন, মানুষের ভিড়, ব'ন্ধ ঘর, যেখানে বাতাস চলাচলের ভালো ব্যব’স্থা নেই, সেসব জায়গায় বাতাসের মাধ্যমে এই ভা'ইরাস সংক্র’মণ ের আশ’ঙ্কা রয়েছে।

এর আগে বিশ্বের দুশর বেশি বিজ্ঞানী এক খোলা চিঠিতে অ’ভিযোগ করেছিলেন যে, এই ভা'ইরাস বাতাসের মাধ্যমে সংক্র’মিত হয়।

এখন বিশ্ব স্বা’স্থ্য সংস্থা বলছে, হাঁচি ও কাশির মাধ্যমে যেসব ক্ষুদ্র জলীয় কণা বের হয়, সেগুলোর মাধ্যমে করো'না ছড়ায়।

তবে বিশ্ব স্বা’স্থ্য সংস্থার এই অব’স্থানের স’ঙ্গে দ্বিমত পোষণ ক’রেছেন ৩২ দেশের ২৩৯ বিজ্ঞানী।

তারা বলছেন, মানুষের কথা বলা এবং শ্বা’স-প্রশ্বা’স নেয়ার পর ক্ষুদ্র কণা কয়েক ঘণ্টা বাতাসে ভেসে থাকে। এর মাধ্যমে করো'না সংক্র’মিত হতে পারে।

ওই খোলা চিঠিতে স্বাক্ষর করা যুক্তরাষ্ট্রের কলোরাডো ইউনিভার্সিটির রসায়নবিদ জোসে জিমেনেজ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘আম’রা চাই করো'না ভা'ইরাস বাতাসে ছড়ানোর বিষয়টিকে বিশ্ব স্বা’স্থ্য সংস্থা স্বী’কার করে নিক’।

বিশ্ব স্বা’স্থ্য সংস্থার ক’র্মকর্তারা সত’র্ক করে বলেছেন, বাতাসের মাধ্যমে এই ভা'ইরাস ছড়ানোর তথ্যপ্রমাণ এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে আছে। এ বিষয়ে আরও পর্যালোচনার প্রয়োজন বলেও মনে করছেন তারা।

তথ্যসূত্র: বিবিসি বাংলা