বর্তমানে পৃথিবীর সবচেয়ে দ্রুতগতির মানব উসাইন বোল্ট। মাত্র ৯.৫৮ সেকেন্ডে ১০০ মিটার দৌড়ে এ খেতাব অনেক নিজে'র করে নিয়েছেন এ জ্যামাইকান স্প্রিন্টার। অ্যাথলেটিকসকে বিদা’য় জা’নালেও আনুষ্ঠানিকভাবে তার রেকর্ড ভাঙতে পারেননি আর কোনো দৌড়বিদ।

তবে দক্ষিণ ভারতের এ নি'র্মাণশ্রমিক প্রশ্নের মুখে তুলে দিয়েছেন বোল্টের রেকর্ডকে। এক জোড়া মহিষ নিয়ে দৌড়ে বোল্টের চেয়ে কম সময়েও ১০০ মিটার পার ক’রেছেন ‘কাম্বালা জকি’ শ্রীনিবাস গৌড়া। মহিষ দৌড়ে ১৪২ মিটারের ধানক্ষেত্র মাত্র ১৩.৪২ সেকেন্ডে পার ক’রেছেন গৌড়া। যা ভে'ঙে দিয়েছে খেলাটির ইতিহাসের ৩০ বছরের পুরনো রেকর্ড।

১৩.৪২ সেকেন্ডে ১৪২ মিটারের হিসেবে ১০০ মিটার যেতে গৌড়ার লে’গেছিল ৯.৫৫ সেকেন্ড। যা কি না বোল্টের চেয়ে ০.০৩ সেকেন্ড কম। গৌড়ার এমন কীর্তির পর তার প্রতি উৎসাহী হয়েছে দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে তাকে ডাকা হয়েছে আনুষ্ঠানিক ট্রায়ালের জন্য। যেখানে ইলেকট্রিক মেশিনে মাপা হবে গৌড়ার গতি।

গৌড়ার গতিতে বিস্মিত হয়ে ভারতের সংসদ সদস্য শশী থারুর তাকে তুলনা করছেন উসাইন বোল্টের স’ঙ্গে । এ নিয়ে টুইটারে লি’খেছেন, ‘উসাইন বোল্টের চেয়েও দ্রুতগামী? কর্ণাটকের এই লোক মোষ নিয়ে ১০০ মিটার ৯.৫৫ সেকেন্ডে পাড়ি দিয়েছে। ভারতের অ্যাথলেটিকস অ্যাসোসিয়েশনকে বলছি তাঁকে নিজেদের অধীনে নিয়ে অলিম্পিক চ্যাম্পিয়ন বানাতে। জানি না এমন আরও কত প্রতিভা লুকিয়ে আছে!’

তবে কাম্বালা একাডেমির প্রধান প্রফেসর কে গুনাপালা কাদাম্বা আবার বোল্টের স’ঙ্গে গৌড়ার তুলনা আনতে নারাজ। তিনি বলেন, ‘অন্য কারো স’ঙ্গে তুলনাকে আম’রা প্রশ্রয় দিতে রাজি নই। এসব পরীক্ষা করার জন্য তাদের (অলিম্পিক কমিটি) আরও উন্নত এবং বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি রয়েছে।’

শ্রীনিবাস গৌড়াও উচ্ছ্বাসে ভেসে যাননি তার এ কীর্তির পর। তিনি মূল কৃতিত্ব দিচ্ছেন তার সঙ্গী জোড়া মহিষকে। গৌড়ার ভাষ্যে, ‘আমি কাম্বালা ভালোবাসি। আমা’র এ সাফল্যের পেছনে দুটি মহিষেরই কৃতিত্ব বেশি। তারা খুব দ্রুত দৌড়েছে। আমি শুধু ওদের অনুসরণ ও পরিচালনা করেছি।’

গৌড়ার এ কৃতিত্বের বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা দিচ্ছেন নানান মত। একপক্ষ বলছে মূলত মহিষ দুইটির গতির কারণেই এত দ্রুত ১৪২ মিটার যেতে পেরেছেন ২৮ বছর বয়সী গৌড়া। তাদের মতো মহিষ দুটোই টেনে নিয়েছে গৌড়াকে। আরেকপক্ষ আবার গৌড়াকে কৃতিত্ব দিচ্ছেন কাঁদামাটি যুক্ত ধানক্ষেতে এমন গতি ধ’রে রাখার কারণে।

কাম্বালা কী: স্থা’নীয় ভাষায় কাম্বালা শব্দের অর্থ ‘কাঁদামাটিযুক্ত ধানক্ষেত’। কর্ণাটকার উপকূলীয় অঞ্চলে এমন মাঠে এক জোড়া মহিষ নিয়ে দৌড় প্রতিযোগিতাকেই মূলত কাম্বালা বলা হয়। সাধারণত ১৩২ থেকে ১৪২ মিটার পর্যন্ত হয়ে থাকে এসব দৌড়ের মাঠগুলো।

পশুদের ওপর অত্যাচার হয়- এমন কথা উঠিয়ে এই দৌড় ব'ন্ধের দা’বি উঠেছিল বেশ কয়েকবার। এমনকি ২০১৪ সালে নিষি’দ্ধও করা হয়েছিল এ দৌড় প্রতিযোগিতা। তবে ২০১৬ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতের আদালত কাম্বালাকে স্বীকৃতি দিয়েছে। কাম্বালা দৌড়ে এখনও পর্যন্ত ২৮টি পদক জিতেছেন শ্রীনিবাস গৌড়া।